Prottashitoalo

‘সেপ্টেম্বরে শিশুদের জন্য ভ্যাকসিন পাওয়া যেতে পারে’

0 12

ইউনিসেফের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ৮০ মিলিয়ন করোনা কেসের মধ্যে ১১ মিলিয়ন (১৩ শতাংশ) শিশুরা ছিল। সেই সঙ্গে ৭৮টি দেশে কোভিড ১৯-এর কারণে ৬ হাজার ৮ শতাধীক শিশু ও কিশোর মারা গিয়েছে। ২০২০ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২১ সালের মার্চ পর্যন্ত ১০০টি দেশের করোনা তথ্য বিবেচনা করে এমন চিত্র দেখা গিয়েছে।

তাই দ্রুত ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসের বিভিন্ন রূপের উত্থানের বিষয়টি বিবেচনা করে বিশেষজ্ঞরা কোভিড ১৯ সংক্রমণ রুখতে টিকা নেয়ার পক্ষেই মত প্রকাশ করেছেন। অতএব, শিশুদেরও যত দ্রুত সম্ভব টিকাকরণের আওতায় নিয়ে আসতে হবে।

এমন সময় আশার কথা জানালেন অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল সায়েন্স (এআইআইএমএস)-এর প্রধান চিকিৎসক রণদীপ গুলেরিয়া। তিনি জানান, ভারতে তৈরি বাচ্চাদের জন্য প্রথম ভ্যাকসিন ‘কোভ্যাক্সিন’ আগামী সেপ্টেম্বর মাস থেকে পাওয়া যেতে পারে।

রণদীপ গুলেরিয়া জানান, বাচ্চাদের জন্য কোভ্যাক্সিনের ট্রায়াল রান ২/৩ ধাপ পেরিয়ে গিয়েছে। সেখান থেকে যে তথ্য পাওয়া যাচ্ছে, তা হল সেপ্টেম্বর মাসেই পাওয়া যেতে পারে এই ভ্যাকসিন। আশা করা হচ্ছে. ওই মাসেই অনুমোদন পাওয়া যাবে।

আরো পড়ুন: উহান ইনস্টিটিউটকে সর্বোচ্চ সম্মান দিচ্ছে চীন

পাশাপাশি তিনি ফাইজার-বায়োএনটেকের ভ্যাকসিনের কথাও উল্লেখ করেছেন। তার কথায়, যদি এই ভ্যাকসিনকেও ছাড়পত্র দেয়া হয়, তাহলে বাচ্চাদের জন্য ২ টি ভ্যাকসিন উপলব্ধ থাকবে। ৭ জুন থেকে দিল্লি এইমস বাচ্চাদের মধ্যে ভ্যাকসিনের ক্লিনিকাল ট্রায়াল শুরু করে। এই ট্রায়াল রানে অংশগ্রহণ করছে ২ থেকে ১৭ বয়সের শিশু থেকে কিশোর-কিশোরীরা। মে মাসে ড্রাগস কন্ট্রোলার জেনারেল অব ইন্ডিয়া (​ডিসিজিআই) ভারত বায়োটেককে কোভ্যাক্সিন ট্রায়াল রান শুরু করার অনুমোদন দেয়।

প্রসঙ্গত, করোনার তৃতীয় ঢেউ অনিবার্য। আগামী ৬-৮ সপ্তাহে মধ্য়ে দেশে আছড়ে পড়তে পারে। আতঙ্ক বাড়িয়ে এমনটাই জানিয়েছেন এইমস প্রধান ডক্টর রণদীপ গুলেরিয়া।

তিনি আরো জানান, তৃতীয় ঢেউয়ের আঘাতে যাতে সর্বাধিক ক্ষতি এড়ানো যায়, সেজন্য টিকাকরণের হার বৃদ্ধি করাই একমাত্র উপায়। যদিও তিনি মেনে নিয়েছেন, এই বিপুল জনসংখ্যার দেশে সকল মানুষকে টিকাকরণের আওতায় আনা অত্যন্ত চ্যালেঞ্জের বিষয়। এমনকি করোনা ভাইরাসের ডেল্টা প্লাস প্রজাতি নিয়েও আতঙ্ক ব্যক্ত করেছেন এইমস প্রধান ডক্টর রণদীপ গুলেরিয়া। সূত্র: জি-নিউজ

Comments
Loading...