Prottashitoalo

‘সংক্রমণের পরবর্তী পর্যায়টি দ্বিতীয় ঢেউয়ের মতো মারাত্মক হবে না’

0 13

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে ভারত পরিণত হয়েছিলো মৃত্যুপুরীতে। রেকর্ড সংক্রমণ; অক্সিজেন সংকটে রোগী, স্বজন ও হাসপাতালগুলোর অসহায়ত্ব; অক্সিজেন না পেয়ে একের পর এক করোনা রোগীর মৃত্যু; দিন-রাত শ্মশানে সারি সারি জ্বলন্ত চিতা— এমন নানা ছবি ভারত ছাড়িয়ে পুরো বিশ্বে আলোড়ন তুলেছিল। তবে ধীরে ধীরে পরিস্থিতি বদলেছে।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ কোনো মতে সামাল দিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছে ভারত। এর মধ্যেই চোখ রাঙাচ্ছে কোভিডের তৃতীয় ঢেউ। আর তৃতীয় ঢেউয়ে আরো বেশি প্রাণহানি হতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন কেউ কেউ। তবে ভাইরাস বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, করোনার তৃতীয় ঢেউ দ্বিতীয়টির মতো মারাত্মক হবে না।

রবিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে এ তথ‌্য জানানো হয়েছে।

ভেলোরের খ্রীষ্টান মেডিকেল কলেজের প্রফেসর এবং ভারতের কোভিড-১৯ নিয়ে গঠিত কমিটির সদস‌্য ডা. গগন দ্বীপ করোনার তৃতীয় ঢেউয়ের বিষয়ে বলেন, ‘করোনার তৃতীয় ঢেউ দ্বিতীয়টির চেয়ে আরো তীব্র হবে কি না তা নিয়ে প্রচুর বিতর্ক রয়েছে। তবে আমার ধারণা, সংক্রমণের পরবর্তী পর্যায়টি দ্বিতীয় ঢেউয়ের মতো এতো মারাত্মক হবে না।’

আরো পড়ুন: বিশ্বে ২৪ ঘণ্টায় করোনায় শনাক্ত কমেছে, মৃত্যু ৫৯৩৮

এদিকে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ বিদায়ের পথে বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। দেশটির স্বাস্থ‌্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনার ডেল্টা প্লাস নয়, ডেল্টা ভ‌্যারিয়েন্টের দিকে নজর দেওয়া উচিত। তারা জানান, ভাইরাসটির রূপ পরিবর্তন করে সর্বোচ্চ শক্তি নিয়ে ডেল্টা প্লাস হয়। এখন আবার ধরন পরিবর্তন হতে পারে। তবে ভাইরাসটি শক্তি হারাবে। অর্থ‌্যাৎ করোনা সংক্রমণ থাকবে তবে প্রাণহানি বা সংক্রমণ কমতে পারে। তবে সর্বস্তরে করোনা মোকাবিলার প্রস্তুতি রাখতে হবে এবং ভ‌্যাকসিন কার্যক্রম চালিয়ে যেতে হবে। তবে আশা মানেই আশকারা নয়, এই সতর্ক বার্তাও দিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

প্রফেসর জ‌্যাবক জন নামে ভেলোরের আরেকজন ভাইরাস বিশেষজ্ঞ আগেই এই বার্তা দিয়েছেন। তিনিও মনে করেন, করোনার তৃতীয় ঢেউ দ্বিতীয়টির মতো মারাত্মক হবে না। তৃতীয় ঢেউ খুব মারাত্মক হবে এমনটি নাও হতে পারে। অথবা কম ক্ষতিকারক হতে পারে বলে তিনি জানান।

প্রসঙ্গত, করোনায় আক্রান্তে দ্বিতীয় ও মৃত্যুতে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে ভারত। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৩ কোটি ৩৬ লাখ ৫১ হাজার ২২১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। মারা গেছেন ৪ লাখ ৪৬ হাজার ৯৪৮ জন। এছাড়া সুস্থ হয়েছেন ৩ কোটি ২৮ লাখ ৯৪ হাজার ৭৬২ জন।

Comments
Loading...