রাণী দ্বিতীয় এলিজাবেথের জন্মদিন উপলক্ষ্যে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা

রাণী দ্বিতীয় এলিজাবেথের জন্মদিন উপলক্ষ্যে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা

0

রঙিন ডেস্ক : ব্রিটেনের রাণী দ্বিতীয় এলিজাবেথের ৯৪তম জন্মদিন জুন মাসের দ্বিতীয় শনিবার। তার জন্মদিন  উপলক্ষ্যে তাঁকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও উষ্ণ অভিনন্দন জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

লন্ডনে বাংলাদেশ হাইকমিশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আজ বুধবার বলা হয়, ১৩ জুন পাঠানো পৃথক শুভেচ্ছা বার্তায়রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী উভয়েই ব্রিটেনের রাণীর সুস্বাস্থ্য, সুখ ও দীর্ঘায়ু এবং গ্রেট ব্রিটেন ও উত্তর আয়ারল্যান্ডের বন্ধু প্রতিম জনগণের অব্যাহত শান্তি, অগ্রগতি ও সমৃদ্ধি কামনা করেন।

রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ তাঁর বার্তায় বলেন, ‘আপনার ৯৪তম জন্মদিন উপলক্ষে আমি আগামী দিনগুলোতে কমনওয়েলথভুক্তআমাদের দুটিদেশের মধ্যে বিদ্যমান বন্ধুত্বের সম্পর্ক আরো গভীর ও জোরদার করার প্রয়াসে আপনার সাথে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করার লক্ষ্যে আমার অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করছি।

রাষ্ট্রপতি আরো বলেন, ‘বিগত সাত দশক ধরে যুক্তরাজ্যের জনগণের প্রতি আপনার সেবা ও কর্তব্য পালনের নিষ্ঠা আমি গভীর শ্রদ্ধার সাথে তা অনুসরণ করে আসছি যা বিশ্বব্যাপী কোভিড-১৯ প্রাদুর্ভাবেরচ্যালেঞ্জ মোকাবেলার সময়ে আমাদের অনুপ্রেরণা জোগাচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর বার্তায় বলেছেন, ‘এই বিশেষ দিনে, রাণী হিসেবে দীর্ঘতম সময় দায়িত্ব পালন করায় আমি আপনাকে শ্রদ্ধা জানাচ্ছি।আপনি বিগত সাত দশক ধরে সর্বোচ্চ নিষ্ঠার সাথে দেশের প্রতি ভালবাসা, দায়িত্ব ও সেবার নজির স্থাপন করা ছাড়াও আমাদের কমনওয়েলথপরিবারের প্রধান হিসেবে বিশ্বব্যাপী কোটি কোটি মানুষের হৃদয়ও জয় করে নিয়েছেন।’

তিনি আরো বলেন, ‘আপনার অনুপ্রেরণাদায়ক কথা- -আমরা আবার আমাদের বন্ধুদের পাশে থাকব, আমরা আবার আমাদের পরিবারের সাথে থাকব, আমরা আবার মিলিত হব -অসামান্য অনুপ্রেরণার আধার হয়ে আছে এবং এই বাক্যগুলো আমাদেরকে কোভিড-১৯ এর মতো আমাদের জীবনের ভয়াবহতম সঙ্কট প্রাণঘাতী মহামারী মোকাবেলায় সাহস যুগিয়ে যাচ্ছে।’

প্রধানমন্ত্রী দুটি কমনওয়েলথ দেশের মধ্যে বিদ্যমান বন্ধুত্ব ও সহযোগিতার চমৎকার সম্পর্কের কথা উল্লেখ করেন।১৯৭৩ সালে অটোয়ায় কমনওয়েলথ সরকার প্রধানদের সম্মেলনে (সিএইচওজিএম) রাণীর সাথে বাংলাদেশের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রথম সাক্ষাতকালে এই সম্পর্কসুদৃঢ় হয়। এরপর বিগত পঞ্চাশ বছরে তা আরো জোরদার হয়েছে।

আরো পড়ুন:- উসকানি বন্ধ করুন, ভারতকে চীনা সেনাবাহিনীর হুঁশিয়ারি

তিনি বলেন, ‘লন্ডনে ২০১৮ সালে সিএইচওজিএম অনুষ্ঠানকালে আমাদের আলাপচারিতার কথা আমি খুবই আনন্দের সঙ্গে স্মরণ করছি।’

web site
Comments
Loading...