Prottashitoalo

মিয়ানমারে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে ৭৫ শিশুর মৃত্যু

0 3

চলতি বছরের ১ ফেব্রুয়ারি রক্তপাতহীন অভ্যুত্থানের মাধ্যমে মিয়ানমারের ক্ষমতা দখল করে দেশটির সেনাবাহিনী। গ্রেপ্তার করা হয় এনএলডির নেতা অং সান সু চিসহ তার দলের শীর্ষ নেতাদের। সেই থেকে শহর-নগরগুলোয় সেনাশাসনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ অব্যাহত রয়েছে।

সামরিক সরকার বিরোধী বিক্ষোভে ১৯ ফেব্রুয়ারি সশস্ত্র বাহিনীর সঙ্গে আন্দোলনকারীদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনায় ১ জনের মৃত্যু হয়। সেটা ছিল অভ্যুত্থানের পর প্রথম মৃত্যু। এরপর ক্রমেই দানা বাধে জান্তা সরকার বিরোধী আন্দোলন। তার সঙ্গে কঠোর হয় জান্তা সরকারও। তাদের সশস্ত্র বাহিনীর হামলা ও দমন-পিড়নের ঘটনায় বাড়তে থাকে মৃত্যুর মিছিলও।

এদিকে সেনা অভ্যুত্থানের পর মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনী গুলি করে ৭৫ শিশুকে হত্যা করেছে। এছাড়া গ্রেপ্তার হয়েছে প্রায় এক হাজার শিশু। শুক্রবার জাতিসংঘের শিশু বিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফের একটি কমিটি এই তথ্য জানিয়েছে।

আরো পড়ুন: দ.আফ্রিকায় সহিংসতায় নিহত বেড়ে ১১৭, সেনা মোতায়েন

ইউনিসেফের একটি কমিটির প্রধাম মিকিকো ওতানি এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘সামরিক অভ্যুত্থানের কারণে মিয়ানমারের শিশুরা অবরুদ্ধ এবং বিপর্যয়কর প্রাণহানির শিকার। শিশুরা প্রতিদিন নির্বিচার সহিংসতা, গুলি ও গ্রেপ্তারের শিকার। তাদের দিকে বন্দুক তাক করে রাখা হচ্ছে এবং তাদের বাবা-মা ও ভাই-বোনদের বেলায় একই ঘটনা ঘটছে’।

১৯৯১ সালে জাতিসংঘের শিশু অধিকার কনভেনশনে স্বাক্ষর করেছিল মিয়ানমার। দেশটি তাদের প্রতিশ্রুতি রক্ষা করছে কিনা তা পর্যবেক্ষণে ইউনিসেফ ১৮ সদস্যের কমিটি করেছে। কমিটির সদস্যরা ‘জান্তা ও পুলিশের হাতে শিশু হত্যার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে’।

তারা জানিয়েছে, কিছু শিশুকে তাদের বাড়িতেই হত্যা করেছে নিরাপত্তা বাহিনী। মিয়ানমারের মান্দালে শহরে ছয় বছরের এক শিশু কন্যাকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছিল। তার পেটে গুলি করেছিল পুলিশ।

Comments
Loading...