Prottashitoalo

মিয়ানমারের প্রধানমন্ত্রী হলেন জান্তা প্রধান মিন অং

0 14

মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থানের পেছনে অন্যতম কারণ গত নভেম্বরের নির্বাচন। ওই নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ সেনাবাহিনীর। এরপর পার্লামেন্টের প্রথম অধিবেশন শুরুর কয়েক ঘণ্টা আগে ১ ফেব্রুয়ারি প্রেসিডেন্ট উইন মিন্ট, সু চিসহ শীর্ষ নেতাদের প্রথমে আটক এবং পরে বিভিন্ন অভিযোগে গ্রেপ্তার দেখানো হয়। এরপর এক বছরের জন্য জরুরি অবস্থা জারি করা হয় মিয়ানমারে।

সামরিক জান্তা হিসেবে ৬ মাস রাষ্ট্র পরিচালনার পর আনুষ্ঠানিকভাবে মিয়ানমারের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করলেন দেশটির সেনা ও জান্তা সরকারের প্রধান মিন অং হ্লাইং। রবিবার (১ আগস্ট) রাষ্ট্রীয় প্রশাসনিক পরিষদের এক বিবৃতিতে তাকে ‘তত্ত্বাবধায়ক সরকারের’ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেয়ার কথা জানানো হয়েছে। দেশটির সরকারি সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে রয়টার্স এ তথ্য জানিয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণের পরেই রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণে নির্বাচনের প্রতিশ্রুতি দেন মিন অং হ্লাইং। ২০২৩ সালের আগস্টের মধ্যে বহুদলীয় জাতীয় নির্বাচন হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

আরো পড়ুন: আফগানিস্তানের হেরাতে বিমান হামলায় তালেবানের ১০০ যোদ্ধা নিহত

মিন অং তার ভাষণে বলেছেন, ‘আমরা ২০২৩ সালে জরুরি অবস্থার বিধান শেষ করব। আমি গণতন্ত্র ও কেন্দ্রীয় সরকার ব্যবস্থার ওপর ভিত্তি করে একটি সম্মিলিত দেশ গঠনের প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি।’

প্রসঙ্গত, সামরিক অভ্যুত্থানের পর এর প্রতিবাদে রাজপথে নেমে আসে দেশটির সর্বস্তরের মানুষ। বিক্ষোভকারীদের কঠোর হাতে দমনের পথে হাটে সেনাবাহিনী। অভ্যুত্থানের পর থেকে এ পর্যন্ত প্রায় হাজার খানেক মানুষ নিহত হয়েছে জান্তা সরকারের নিয়ন্ত্রিত নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে। ধরপাকড়ের শিকার হয়েছে ছয় হাজারেরও বেশি মানুষ।

অভ্যুত্থানের পরদিন জরুরি অবস্থা জারি করে এক বছরের মধ্যে নির্বাচন আয়োজনের ঘোষণা দেয় জান্তা সরকার। তবে রবিবার টেলিভিশনে দেওয়া ভাষণে নয়া প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, নির্বাচন হবে আরও দুই বছর পর।

Comments
Loading...