Prottashitoalo

পর্দা মেনে উচ্চশিক্ষা নিতে পারবেন আফগানিস্তানের নারীরা

0 11

১৯৯৬ থেকে ২০০১ সালে তালেবানের শাসনে আফগানিস্তানে শিক্ষাসহ নারীদের সব ধরনের অধিকার খর্ব করা হয়েছিল। কিন্তু এবার রাষ্ট্রক্ষমতায় ফিরে কট্টর ইসলামপন্থী তালেবান পূর্বের কঠোর অবস্থান থেকে সরে আসার ইঙ্গিত দেয়। তালেবানের ওই ইঙ্গিতের কিছুটা প্রমাণ মিলেছে আফগান নারীদের উচ্চশিক্ষা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়ে।

এখন থেকে আফগানিস্তানের নারীদের বিশ্ববিদ্যালয়ে যেতে বাধা নেই, এমনকি স্নাতকোত্তর পর্যন্ত পড়তে পারবেন তারা। শর্ত একটাই, পর্দা রক্ষায় ছেলেমেয়ে একসঙ্গে নয়, বসতে হবে আলাদা ক্লাসরুমে এবং অবশ্যই হিজাব পরতে হবে।

তালেবানের নতুন সরকারের শিক্ষামন্ত্রী আব্দুল বাকি হাক্কানি রবিবার (১২ সেপ্টেম্বর) শিক্ষাব্যবস্থা নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন।

আরো পড়ুন: আমেরিকায় ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত কমেছে, মৃত্যু ৭১৯

নতুন সরকারের শিক্ষামন্ত্রী আব্দুল বাকি হাক্কানি বলেন, আফগানিস্তানের সুন্দর ভবিষ্যতের দায়িত্ব এখন আমাদের। নারী-পুরুষ সবার জন্য শিক্ষাব্যবস্থা নিশ্চিত করে নতুন জাতি গঠনে আমরা কাজ করব। বর্তমানে আফগানিস্তনে অনেক সরকারি-বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে, যেখানে এখন থেকে নারী-পুরুষ আলাদা হয়ে পর্দার মধ্যে থেকে উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করতে পারবে।

এছাড়া এর আগে তালেবানের বিগত শাসনামলে আফগানিস্তানের শিক্ষা ও সামাজিক ব্যবস্থায় নারীদের যে নিষেধাজ্ঞা ছিল, সেক্ষেত্রেও পরিবর্তন আনতে যাচ্ছে তালেবান।

আব্দুল বাকি হাক্কানি আরো বলেন, তালেবানের অবস্থান বজায় রেখে বর্তমানে আফগানিস্তানের আজ যা আছে তার ওপরই আমরা নির্মাণ শুরু করব। গত ২০ বছরে যতটা পরিবর্তন এসেছে, বিশেষ করে নারীদের ব্যাপারে, সে বিষয়ে আমরা অবগত।

Comments
Loading...