Prottashitoalo

দেশে ফিরছেন ২৯ হাজার প্রবাসী: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

0 11

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে বিভিন্ন দেশ থেকে প্রায় ২৯ হাজার প্রবাসী দেশে ফিরছেন। আগামী কয়েক সপ্তাহে ফিরতে পারেন তারা।

করোনায় চলমান সঙ্কট নিয়ে বুধবার পঞ্চম আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক শেষে এক ভিডিওবার্তায় তিনি এ তথ্য জানান।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে প্রবাসী নাগরিকদের জন্য করণীয় নিয়ে এক আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ভিডিও কনফারেন্সে অনুষ্ঠিত এ বৈঠকে প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রী ইমরান আহমেদ এবং পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেনসহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিরা অংশ নেন।

বৈঠক শেষে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আগামী কয়েক সপ্তাহে ২৮ হাজার ৮৪৯জন প্রবাসী নাগরিক দেশে ফিরবেন। আমরা তাদের জন্য কী ব্যবস্থা করছি, তা নিয়ে আলাপ করেছি। এছাড়া মধ্যপ্রাচ্য থেকে অনেকেই দেশে ফিরছেন।

মালদ্বীপ থেকে বৃহস্পতিবার আরও চারশ’ বাংলাদেশি ফিরছেন জানিয়ে মোমেন বলেন, “ইতোমধ্যে আমরা আরও কিছু নিয়ে এসেছি। প্রবাসীদের যাতে অসুবিধা না হয়, সেজন্য আমরা এক টনের মতো খাবার-দাবার দিয়েছি। মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট জানিয়েছেন, ওখান থেকে আমাদের ১৫ শ লোক আসবে।”

সৌদি আরব থেকে মোট কত শ্রমিককে ফেরাতে হবে, সেই হিসাব দেশটি ‘পুরোপুরি’ দেয়নি মন্তব্য করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “তাদের কনটেক্সটে ৪ হাজার ২৬২ জন আসার সম্ভাবনা আছে।”

ওমান থেকেও এক হাজার বাংলাদেশিকে ফিরতে হবে। ইরাকেও অনেক শ্রমিক চাকরি হারিয়েছেন। সংযুক্ত আরব আমিরাত, জর্ডান, লেবানন প্রভৃতি দেশ থেকে প্রবাসী অনেক বাংলাদেশিকে ফিরতে হচ্ছে।

মন্ত্রী বলেন, গত সপ্তাহে মধ্যপ্রাচ্য থেকে ৩ হাজার ৬৯৫ জন প্রবাসীর দেশে ফেরার তথ্য দিয়ে মন্ত্রী বলেন, “এদের মধ্যে একটি বিরাট সংখ্যক হচ্ছেন… যারা জেলে ছিলেন, করোনাভাইরাস আসার পরপর মধ্যপ্রাচ্যের সরকারসমূহ তাদের মোটামুটি মাফ করে দিয়েছেন, তাদেরকে আগে আগে পাঠাচ্ছে।

আরো পড়ুন:- সাংবাদিকরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছেন : তথ্যমন্ত্রী

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এছাড়া যারা ওমরাহ হজ করতে গিয়েছেন, আমরা তাদেরও গ্রহণ করেছি। আর এর সঙ্গে আছেন যারা আনডকুমেন্টেড বা ইলিগ্যাল, তাদেরও আমরা গ্রহণ করেছি।”

ভারত, চীন, জাপান প্রভৃতি দেশে আটকা পড়া ২ হাজার ৮৫৩ জনকে ফেরানোর কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, ”আরও কিছু রয়েছেন, ভারতে আছেন, তাদেরকে বিশেষ ফ্লাইটে আনার চেষ্টা করছি।”

লন্ডন ও যুক্তরাষ্ট্র থেকে কীভাবে আটকা পড়া বাংলাদেশিদের ফেরানো যায়, সেই পরিকল্পনাও করা হচ্ছে।

এছাড়া করোনাভাইরাসে কেউ মারা গেলে তার লাশ সৌদি আরব ও আরব আমিরাত দেবে না জানিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ”তারা তাদের দেশে ইসলামী নিয়মে দাফন করবে। অন্যান্য দেশ থেকে লাশ দেশে এলেও পরিবার-পরিজনরা দেখতে পারবেন না।”

সব কিছুর পরও ‘একান্ত বাধ্য না হলে’ প্রবাসীদের দেশে না ফেরার আহ্বান জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

তিনি বলেছেন, “করোনাভাইরাস পরীক্ষার সার্টিফিকেট আনুন। নেগেটিভ হলে আপনাদের বাড়িতে কোয়ারেন্টিনে যেতে পারবেন। সার্টিফিকেট না থাকলে অবশ্যই প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে যেতে হবে।”

ভিডিওবার্তায় মন্ত্রী বলেন, কুয়েতে ক্যাম্পে আটক বাংলাদেশিদের ফেরানোর বিষয়টি নির্ভর করছে সেদেশের সরকারের ওপর।

Comments
Loading...