Prottashitoalo

‘টিকাহীনদের জন্য ওমিক্রন ঝুঁকির কারণ’

0 11

পূর্বে যেসব দেশে করোনার ডেল্টা ধরন আধিপত্য দেখিয়েছিল সেসবসহ ওমিক্রন এখন বিশ্বের বিভিন্ন দেশে দ্রূত ছড়িয়ে পড়ছে। ধারাবাহিকভাবে পাওয়া তথ্য প্রমাণে দেখা যায় ওমিক্রন দুই থেকে তিন দিনের মধ্যে ডেল্টার চেয়ে দ্বিগুণ গতিতে বৃদ্ধি পায় এবং বিভিন্ন দেশে এটি খুব দ্রুত সংক্রমণ বৃদ্ধি করছে।

এদিকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, ডেল্টার চেয়ে ওমিক্রনের সংক্রমণে গুরুতর অসুস্থ হওয়ার ঝুঁকি তুলনামূলক কম হলেও, যারা টিকা নেননি তাদের জন্য ওমিক্রন বিপদজনক।

বুধবার সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় এক সংবাদ সম্মেলনে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালক তেদ্রোস আধানম বলেন, “এই ভাইরাসকে আমরা মুক্তভাবে চলার সুযোগ দিতে পারি না, বিশেষ করে যখন বিশ্বের অনেক মানুষ টিকা পায়নি”।

তিনি বলেন, ৯০টির বেশি দেশ এখনো তাদের জনসংখ্যার ৪০ শতাংশকে টিকাদানের লক্ষ্য পূরণ করতে পারেনি এবং আফ্রিকার ৮৫ শতাংশের বেশি মানুষ এখনো এক ডোজ টিকাও পায়নি।

আরো পড়ুন: ভারতে দৈনিক আক্রান্ত ২ লাখ ৪১ হাজার ছাড়ালো

মঙ্গলবার সাপ্তাহিক প্রতিবেদনে ডব্লিউএইচও জানায়, ৯ জানুয়ারি থেকে পরের সপ্তাহে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা আগের সপ্তাহের চেয়ে ৫৫ শতাংশ বা দেড় কোটি বেড়েছে, যা এখন পর্যন্ত এক সপ্তাহে সর্বোচ্চ শনাক্তের রেকর্ড।

মহাপরিচালক বলেন, “সংক্রমণের এই ব্যাপক বৃদ্ধি ওমিক্রনের মাধ্যমে হচ্ছে, যেটা ধারাবাহিকভাবে প্রায় সব দেশেই ডেল্টা ধরনের জায়গাটি নিয়ে নিচ্ছে”।

তিনি জানান, কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে এখন যারা হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছেন, তাদের বেশিরভাগই টিকা না পাওয়া রোগী।

যদি সংক্রমণ কমিয়ে আনা সম্ভব না হয়, তাহলে ভবিষ্যতে ওমিক্রনের চেয়েও সংক্রামক এবং আরো ভয়াবহ নতুন ভ্যারিয়েন্টের উদ্ভব হওয়ার শঙ্কার কথা জানিয়ে সতর্ক করেছেন ডব্লিউএইচও মহাপরিচালক।

উল্লেখ্য, গত বছরের ২৪ নভেম্বর করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রন দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রথম শনাক্ত হওয়ার কথা জানায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। প্রাথমিকভাবে নতুন এই ধরনটিকে ‘বি.১.১.৫২৯’ নামে ডাকা হচ্ছিল। পরে ডব্লিউএইচও নতুন এ ধরনের নামকরণ করে ‘ওমিক্রন’ এবং একে ‘উদ্বেগজনক’ ধরন বলে আখ্যায়িত করেছিল। সূত্র: রয়টার্স

Comments
Loading...