Prottashitoalo

চীনে ক্রমশ ভয়াবহ হচ্ছে করোনা, জুলাইয়ে সর্বোচ্চ সংক্রমণ

0 5

২০১৯ সালের শেষ দিকে উহানে প্রথম করোনার প্রাদুর্ভাব ঘটার পর তা বৈশ্বিক মহামারিতে রূপ নিয়েছে। ভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে প্রথম থেকেই কঠোর অবস্থান নিয়ে চীন এর রাশ টেনে ধরতে অনেকটা সফলও হয়েছে।

তবে জুলাইয়ে ১৪টি প্রদেশ করোনার উপসর্গযুক্ত ও উপসর্গহীন লক্ষণ দেখা গেছে। যেহেতু করোনার অতি সংক্রামক ডেল্টা ধরন বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়েছে। সেক্ষেত্রে চীন ভাইরাসটির সংক্রমণ ঠেকাতে চাপের মুখোমুখি হচ্ছে।

সিনহুয়ার এক খবরে জানানো হয়, চীনে গত জুলাইয়ে মোট ৩২৮ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন; যা চলতি বছরের প্রথম পাঁচ মাসের সংক্রমণের কাছাকাছি। জুলাইয়ে দৈনিক গড়ে ২৭ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে।

রবিবার (১ আগস্ট) ওয়ার্ল্ডওমিটারের তথ্যানুযায়ী, চীনে এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন মাত্র ৯২ হাজার ৯৩০ জন। মারা গেছেন ৪ হাজার ৬৩৬ জন। সুস্থ হয়েছেন ৮৭ হাজার ৩২৩ জন।

এদিকে শনিবার (৩১ জুলাই) ন্যাশনাল হেলথ কমিশনের মুখপাত্র মি ফেং এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, সম্প্রতি চীনের বেশ কয়েকটি স্থানে করোনার ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট প্রবেশ করেছে।

বিবিসি এক প্রতিবেদনে জানানো হয়, চলতি বছরের ২০ জুলাই শহরটির ব্যস্ততম বিমানবন্দরে প্রথম করোনা শনাক্ত হয়েছে। পরে তা আরো প্রায় ২০০ জনের শরীরে সংক্রমিত হয়েছে। এতে আগামী ১১ আগস্ট পর্যন্ত নানজিং বিমানবন্দরের সব ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। হুবেই প্রদেশের রাজধানী উহানের পর নতুন এই মহামারিকে সবচেয়ে ব্যাপক বলে আখ্যায়িত করেছে দেশটির স্থানীয় সংবাদমাধ্যম।

আরো পড়ুন: ‘মিউটেশন ঘটিয়ে আরো ভয়ানক স্ট্রেন তৈরি করতে পারে করোনা’

এই মহামারির কারণে শহর কর্তৃপক্ষের ব্যর্থতাকে দায়ী করা হচ্ছে। শহরটিতে ইতিমধ্যে ব্যাপকভিত্তিক পরীক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়ে গেছে। রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম সিনহুয়া বলছে, শহরের ৯৩ লাখ বাসিন্দা ও সেখানে ভ্রমণকারীদের করোনা পরীক্ষা করা হবে।

নতুন এই মহামারির পেছনে অতিসংক্রামক ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টকে দায়ী করা হচ্ছে। বিমানবন্দরের ব্যস্ততার কারণে মহামারি এত বেশি ছড়িয়েছে বলে দাবি করছেন কর্মকর্তারা।

নানজিংয়ের স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডিং জি সাংবাদিকদের বলেন, গত ১০ জুলাই শহরে রাশিয়া থেকে আসা একটি ফ্লাইটে কাজ করা একজন পরিচ্ছন্নকর্মীর সঙ্গে এই মহামারি বিস্তারের সম্পর্ক রয়েছে। কারণ তিনি স্বাস্থ্যবিধি সঠিকভাবে মেনে চলেননি বলে এই সংক্রমণ হয়েছে।

এ ঘটনায় সমালোচনার মুখে পড়েছে বিমানবন্দর ব্যবস্থাপনা। সেখানে তদারকির অভাব ও অপেশাদার ব্যবস্থাপনাকে দায়ী করেছে স্থায়ী কমিউনিস্ট পার্টি। করোনা পরীক্ষা থেকে দেখা যাচ্ছে, ভাইরাস এখন রাজধানী বেইজিং এবং চেংডুসহ অন্তত ১৩টি নগরীতে ছড়িয়েছে।

সরকারি ট্যাবলয়েড গ্লোবাল টাইমস জানিয়েছে, ভাইরাসের বিস্তার এখনও প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে এবং তা নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব বলেই মনে করছেন তারা। নানজিংয়ের স্থানীয় কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, কোভিড শনাক্ত হওয়াদের ৭ জনের অবস্থা গুরুতর।

Comments
Loading...