Prottashitoalo

চার অপহরণকারীর লাশ ক্রেনে ঝুলিয়ে শহর ঘুরলো তালেবান

0 16

আফগানিস্তানে চার অপহরণকারীকে হত্যার পর তাদের লাশ প্রকাশ্যে ক্রেনে ঝুলিয়ে রেখে শহরের বিভিন্ন স্থানে ঘুরিয়েছে তালেবান। গত ১৫ আগস্ট তালেবান আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখলের পর এই প্রথম কোনো অপরাধে কঠোর শাস্তি দিলো।

জানা যায়, দেশটির পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর হেরাতে শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) এ ঘটনা ঘটেছে। ভয় দেখিয়ে অন্যদের এ ধরনের অপরাধ থেকে বিরত রাখতেই এমনটি করা হয়েছে বলে দাবি স্থানীয় এক সরকারি কর্মকর্তার।

হেরাতের ডেপুটি গভর্নর মৌলবি শির আহমাদ মুহাজির জানিয়েছেন, কাউকে অপহরণ করা হলে তা বরদাশত করা হবে না জানাতে শহরের বিভিন্ন স্থানে চার জনের মৃতদেহ ঝুলিয়ে রাখা হয়েছিল।

তিনি বলেন, ‘শনিবার সকালে নিরাপত্তা বাহিনী জানতে পারে এক ব্যবসায়ী ও তার ছেলে অপহরণ করা হয়েছে। পুলিশ দ্রুত নগরী থেকে বাইরে যাওয়ার পথগুলো বন্ধ করে দেয়। একটি তল্লাশি চৌকিতে তালেবান এক ব্যক্তিকে থামানোর পর সে গুলি ছোড়ে। তালেবান সদস্যরা পাল্টা গুলি ছুড়লে সেখানে বন্দুযুদ্ধ শুরু হয়ে যায়। আমাদের এক মুজাহিদ আহত হয়েছে এবং চার অপহরণকারী নিহত হয়েছে।’

আরো পড়ুন: যুক্তরাষ্ট্রে সুপারশপে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২, আহত ১২

এদিকে এ ঘটনার পর তালেবানের বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে কঠোর সমালোচনা শুরু হয়েছে।

ধীরে ধীরে ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করতে শুরু করেছে তালেবান। সাধারণ ক্ষমা ঘোষণার মধ্যদিয়ে শান্তি প্রতিষ্ঠার ডাক দিলেও আতঙ্ক আর মধ্যযুগীয় কায়দায় শাসন পরিচালনা শুরু করেছে কট্টর এ গোষ্ঠীটি। ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত গোষ্ঠীটি ক্ষমতায় থাকার সময় যে কট্টরপন্থী অবলম্বন করেছিল, তা এখনো তারা বহাল রাখবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

গেল সপ্তাহে বার্তা সংস্থা এপিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে জ্যেষ্ঠ তালেবানের এক শীর্ষ নেতা বলেছিলেন, অপরাধ বন্ধে অঙ্গচ্ছেদ ও মৃত্যুদণ্ডের মতো শাস্তি বিধান আবার চালু করবে তারা। আন্তর্জাতিক নিন্দা সত্ত্বেও তালেবান জানিয়েছে, ডাকাতি, খুন ও অপহরণের মতো অপরাধ বন্ধ করতে তারা আইনভঙ্গকারীদের দ্রুত ও কঠোর শাস্তি দেয়া অব্যাহত রাখবে।

Comments
Loading...