Prottashitoalo

চলে গেলেন হেঁটে হজে যাওয়া সেই হাজি মহি উদ্দীন

0 31

পায়ে হেঁটে হজ পালনকারী দিনাজপুরের একমাত্র হাজি মোহাম্মদ মহি উদ্দিন আর নেই। রোববার (১০ অক্টোবর) রাত সাড়ে ১২টায় রামসাগর খসরুর মোড়ে মেয়ের বাড়িতে তিনি ইন্তেকাল করেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে হাজি মহি উদ্দীনের বয়স হয়েছিল ১১৫ বছর। দুই ছেলে ও চার মেয়ে রেখে গেছেন তিনি।

সোমবার (১১ অক্টোবর) বাদ জোহর রামসাগর জাতীয় উদ্যানের বায়তুল আকসা জামে মসজিদের সামনে তার জানাজা হবে। পরে রামসাগর দীঘিপাড়ায় পারিবারিক গোরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।

হাজি মহি উদ্দীন দিনাজপুর সদর উপজেলার রামসাগর দিঘীপাড়া গ্রামের মৃত ইজার পন্ডিত ও মমিরন নেছার ছেলে। তিনি জাতীয় উদ্যানের বায়তুল আকসা জামে মসজিদের সাবেক ইমাম।

চলে গেলেন হেঁটে হজে যাওয়া সেই হাজি মহি উদ্দীন

১৯০৬ সালের ১০ আগস্ট জন্মগ্রহণ করেন মো. মহি উদ্দীন। ১৯৬৮ সালে হজ করার উদ্দেশ্যে হেঁটে দিনাজপুর থেকে রওনা হন তিনি। সেই সময় তার কাছে হজ করার মতো আর্থিক সার্মথ্য ছিল না। অদম্য ইচ্ছা নিয়ে আর এলাকাবাসীর সহায়তায় হেঁটেই হজ করতে যান তিনি। ওই সময়ে হজে যেতে পাসপোর্ট ও ভিসা করতে তার খরচ হয় ১২০০ টাকা।

তার হজ যাত্রায় সময় লেগেছিল ১৮ মাস। এ ১৮ মাসে তিনি পাড়ি দেন কয়েক হাজার কিলোমিটার পথ। কখনো হেঁটে, কখনোবা জাহাজে, আবার কখনো স্থানীয় যানবাহনে চড়ে ৩০টি দেশ ঘুরে তিনি পৌঁছান প্রিয় নবিজির পবিত্র ভূমি মক্কা-মদীনায়। যে দেশগেুলো তিনি সফর করেছেন মৃত্যুর আগ পর্যন্ত মুখস্ত বলতে পারতেন সেসব দেশের নাম।

পবিত্র হজব্রত পালন করে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন তিনি দেশে ফিরেন। অসম্ভব স্মৃতিশক্তির অধিকারী মহি উদ্দীন মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তার দীর্ঘ সফরের বর্ণনা দিতে পারতেন।

Comments
Loading...