কেমন উপাচার্য চায় ইবির নবীন শিক্ষার্থীরা? - প্রত্যাশিত আলো নিউজ
prottashitoalo
Prottashito Alo is an online news portal based on Bangladesh with worldwide influence and readership. Founded in 20th February,2019 published from Dhaka in the Bengali language. It provides updated news faster, informative and authentic news compared to any other newspapers. Based on circulation, Prottashito Alo is the one of the most popular news portals in Bangladesh.

কেমন উপাচার্য চায় ইবির নবীন শিক্ষার্থীরা?

0 ৫৪৬

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

১৯৭৯ সালের ২২ নভেম্বর প্রতিষ্ঠা লাভ করে স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ের প্রথম বিশ্ববিদ্যালয় ‘ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ‘ । প্রতিষ্ঠার পরবর্তী সময় থেকেই ১২ জন উপাচার্য নিয়োগপ্রাপ্ত হয়েছেন ২০২০ সাল পর্যন্ত । ইবির ইতিহাসে সর্বশেষ ভিসি হারুন অর রশিদ একমাত্র তার পূর্ণ ৪ বছরের মেয়াদ শেষ করতে সক্ষম হয়েছেন । ২০১৬ সালের ২১ আগস্ট থেকে ২০২০ সালের ২১ আগস্ট পর্যন্ত টানা ৪ বছর ভিসি পদে নিয়োজিত ছিলেন ড. হারুন অর রশিদ । মেয়াদ শেষ হ‌ওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ১৩ তম ভিসি কে হবে নিয়ে তুমুল আলোচনা ও সমালোচনার জোয়ার সৃষ্টি হয়েছে ইবি শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা কর্মচারীদের নিকট । তবে বর্তমান শূন্য পদে ভিসি নিয়ে শিক্ষার্থীদের রয়েছে ভিন্ন মতামত । চলুন জেনে নেওয়া যাক ইবির ১৩ তম উপাচার্য হিসেবে ইবি শিক্ষার্থীদের ভাবনা । জানাচ্ছেন ‘ প্রত্যাশিত আলো ‘ কে :

মোঃ শাহারিয়ার বেলাল, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগ : ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন সাধারণ শিক্ষার্থী হিসেবে আমার কাছে সর্বপ্রথম যে বিষয়য়টি দৃষ্টিগোচর হয় তা হলো আগত ভিসি কে অবশ্যই সুযোগ্য এবং সম্যক জ্ঞানসম্পন্ন হতে হবে আর দলমত নির্বিশেষে একজন শিক্ষার্থীবান্ধব উপাচার্য হওয়া উচিৎ বলে আমি মনে করি। যার কাছে শিক্ষার্থীরা তাদের সুবিধা অসুবিধা অনায়াসে ব্যক্ত করতে সক্ষম হবে। শিক্ষক শিক্ষার্থীদের মাঝে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক, সর্বোপরি শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সক্ষম হবেন। শুধু তাই নয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক পরিকল্পনা হাতে নিয়ে এগিয়ে যাবে দূর্বার গতিতে। এছাড়াও শিক্ষার্থীদের ন্যায্য দাবী পূরন, আবাসন, পরিবহন সুবিধা নিশ্চিতকরণ ও সেশনজটমুক্ত একটি আধুনিক বিশ্ববিদ্যালয় উপহার দিবেন এটাই প্রত্যাশা। মোট কথা একজন সুদক্ষ নাবিকের মতো এগিয়ে নিয়ে যাবেন আমাদের প্রাণের ইবি কে।

মোঃ তানভীর আহমেদ, ইংরেজি বিভাগ : একজন ভিসির সবচেয়ে সুন্দর বিশেষন হলো ‘আমাদের অভিভাবক ‘।তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক,শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা -কর্মচারী সকলের অভিভাবক।উচ্চশিক্ষা জীবনের শুরুতেই করোনা মহামারীর করলে পড়ে গেছি আমরা। এই বিশ্বমহামারির ক্ষতি যেন সর্বোচ্চটা পুষিয়ে নেয়া যায়, তার উদ্যোগ যেন গ্রহন করেন। জট কালচার যেন ফিরে না আসে, জট জাদুঘরে পাটানোর অঙ্গিকার যেন চলমান থাকে। শিক্ষার্থী বান্ধব, সৎ একজন যোগ্য মানুষকে দেখতে চাই। শিক্ষার্থীদের সাথে যেন আত্মীক সম্পর্ক থাকে।সততা ও দায়িত্ববোধের দ্বারা শিক্ষার্থীদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠতে পারেন।তিনি যেন কোনো নেতিবাচক আলোচনায় না আসেন।বিশ্ববিদ্যালয়ের কাঠামোগত উন্নয়নসহ যাবতীয় দিক যেন বিবেচ্য হয়।শিক্ষার মানোন্নয়নে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করেন।আবাসন সুবিধা ও যাতায়াত সুবিধা নিশ্চিত করতে পারেন।আমাদের ভিসি যেন হন আমাদের স্বপ্নদ্রষ্টা।

মোঃ তানজীর আহমেদ রিদয়, ফিন্যান্স ও ব্যাংকিং বিভাগ : নতুন উপাচার্য হিসেবে এমন কেউ আসবে যে,ছাত্র- ছাত্রী দের সাথে মিশবে বন্ধুসুলভ ভাবে।সাধারন ছাত্র-ছাত্রী দের ন্যায্য অধিকার পুরনের জন্য সকল ভুমিকা পালন করবে।ক্যাম্পাসের অবস্থানরত সকলের সার্বিক নিরাপত্তা বজায় রাখার পাশাপাশি ব্যাক্তি স্বাধীনতা রক্ষা করতে সদা প্রস্তুুত থাকবে।আধুনিক শিক্ষা ব্যাবস্থা গ্রহণ এর মাধ্যমে আমাদের ক্যাম্পাসকে বিশ্বের মধ্যে রোল মডেল তৈরি করা। রাজনীতি মুক্ত,র্্যগিং মুক্ত এবং ছাত্র – ছাত্রী দের জন্য প্রয়োজন অনুযায়ী আবাসিক হলের ব্যাবস্থা। করোনা ভাইরাসের কারণে সৃষ্ট সেশন জট থেকে মুক্তির জন্য প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহণ করা। সর্বোপরি ক্যাম্পাস কে ভালোবেসে উন্নত ও আন্তর্জাতিকীকরণ এর পথে এগিয়ে নিয়ে যাবে এরকম ১৩ তম উপাচার্য চাই ।

মোছাঃ রুখসানা খাতুন, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগ : ভিসি স্যারকে অবশ্যই জ্ঞানগরিমা আর ব্যাক্তিত্ব সম্পন্ন হতে হবে।আবাসন ও পরিবহন সংকট নিরসনের জন্য হল নির্মান ও বাস বৃদ্ধি করতে হবে।গবেষনার সুযোগ বৃদ্ধি ও পড়াশোনার জন্য পরিবেশ তৈরি করবেন। র‍্যাগিং আর নির্যাতন বন্ধ করবেন। হলে খাবারে মান উন্নতি করবেন।পাশাপাশি প্রত্যেকটা ভবনের পাশে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক ক্যান্টিন নির্মানের বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখবেন।অবশ্যইই মেয়েদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করে হলে প্রবেশের সময় অন্তত ১০ টা পর্যন্ত বৃদ্ধি করবেন।গ্রন্থাগারে নতুন বই সংযোজন সহ সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি করবেন।সাংস্কৃতিক চর্চার সুযোগ বৃদ্ধি করবেন। বিশ্ববিদ্যালয় র‍্যাংকিংযে যেন কোনো অংশে পিছিয়ে না থাকি সেই জন্য অবশ্যইই সার্বিক উন্নতে কল্পে কাজ করবেন।

মোঃ সাজ্জাত হোসেন খান সাফল্য, উন্নয়ন বিভাগ : উপাচার্য হলেন একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের হাজারো শিক্ষার্থী, শিক্ষক-কর্মকর্তার অভিভাবক একই সাথে তিনি একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণও বলা চলে!
একজন উপচার্য চাইলে একটি বিশ্ববিদ্যালয়কে টেনে আন্তর্জাতিক মানের বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিণত করতে পারেন আবার এর বিপরীত পরিনতিটাও তার হাতেই ন্যাস্ত থাকে! ইবির একজন নবীন শিক্ষার্থী হিসেবে আমি এমন একজন উপচার্য চাই, যিনি হবেন সৎ, দেশপ্রেমিক ও নির্ভীক। যার দক্ষ নেতৃত্বে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় হবে অনিয়ম, দুর্নীতি ও মাদকমুক্ত! ইবিকে গণতান্ত্রিক ক্যাম্পাস, দখলদারিত্ব মুক্ত হল ও ছাত্রদের অধিকার নিশ্চিতকরণে তার অগ্রণী ভূমিকা থাকবে সাথে সাথে তিনি তার দক্ষ নেতৃত্ব দানের মাধ্যমে ইবির বর্তমান উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখবেন এবং ইবিকে আন্তর্জাতিকরনের মাধ্যমে বিশ্বের দরবারে অন্যতম রোল মডের হিসেবে গড়ে তুলবেন! বর্তমান ইবি ক্যাম্পাসে সেশনজট নেই বললেই চলে, কিন্তু সেখানে করোনা মহামারির বদৌলতে নতুন করে পূর্বাবস্থায় ফিরে আসা চালেঞ্জের হলেও ১৩ তম উপচার্য অত্যন্ত দক্ষতার সাথে এই সমস্যা সমাধানের অন্যতম পথ খুজে বের করবেন পাশাপাশি, ইবির শিক্ষা ও গবেষণার খাতের অসীম উন্নয়ন সাধন করবেন! সর্বোপরি, ইবির সার্বিক উন্নয়ন সাধন এবং মননশীল দৃষ্টান্ত স্থাপনই হবে ১৩তম উপচার্যের লক্ষ্য বস্তু!

ফ্রা‌ন্সিস‌কো ডি ফ্লো‌রেন্স, ই‌লেক‌ট্রিক‌্যাল এন্ড ই‌লেকট্র‌নিক ই‌ঞ্জি‌নিয়া‌রিং বিভাগ : আমরা চাই একজন অভিভাবক।যে দ্বিতীয় অভিভাবকের ভূমিকা পালন করবে। হাজারো ছাত্রছাত্রী, শিক্ষক,কর্মকর্তা, কর্মচারীর অ‌ভিভাবক । স্বাধীনতার পর প্রথম স্থাপিত পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ‘ইসলামিক বিশ্ববিদ্যালয়’।যুগোপযোগী শিক্ষা ও আধুনিকিকরণের জন্য আমরা একজন ডাইনামিক ভিসির প্রত্যাশা করছি।যে আমাদের ক্যাম্পাসের আলোর দিশারী হবে। একজন উপাচা‌র্যের শিক্ষাগত যোগ‌্যতা ও প্রশাস‌নিক যোগ‌্যতা উভয় দরকার।‌বিশ্ব‌বিদ‌্যাল‌য়ের শিক্ষা, গ‌বেষণা ও সাম‌গ্রিক মা‌নউন্নয়‌নের জন‌্য স‌র্বোচ্চ চেষ্টা কর‌বে উপাচার্য।সর্বোচ্চ মেধাবী‌দের শিক্ষক হি‌সে‌বে নি‌য়োগ দি‌তে বাধ‌্য থাক‌বেন তি‌নি । গ‌বেষণার জন‌্য সরকার বা অনুদান প্রদানকারী প্র‌তিষ্ঠান এর কা‌ছে অনুদা‌নের জন‌্য যে‌াগাযোগ রাখ‌বেন এবং গ‌বেষণার জন‌্য তা‌গিদ দে‌বেন । প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে মুখরিত ইবি ক্যাম্পাসকে বিশ্বঙ্গানে যে আরও মুখরিত করতে সক্ষম করবে আমরা সেরকম একজন ভিসি চাই। বিশ্ব‌শেরা বিশ্ব‌বিদ‌্যালয় থে‌কে আমরা কেন পি‌ছি‌য়ে আ‌ছি, এর থে‌কে উত্তর‌ণের উপায় কি , এসব বিষ‌য়ে সবসময় ভাব‌বেন তি‌নি । শিক্ষা গ‌বেষণা নি‌য়ে লিখা‌লি‌খি কর‌বেন। সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া অঙ্গনে যার উৎসাহ আমাদেরকে উদ্দীপীত করবে আমরা এমন একজন ভিসি চাই।সর্বশেষে এটুকু বলতে চাই যে,আমরা নব ভিসির হাত ধরেই আমরা শাটল ট্রেনের যাত্রা শুরু করতে চাই ।

আরও পড়ুন: ‘ইউএনও’র ওপর হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হবে’

Comments
Loading...