Prottashitoalo

ওমিক্রন: একে একে তালিকায় যুক্ত হচ্ছে নতুন দেশ

0 15

গত ২৪ নভেম্বর দক্ষিণ আফ্রিকায় এটি প্রথম শনাক্ত হয়। শুরুতে করোনার নতুন ধরনটির নামকরণ করা হয় বি.১.১.৫২৯। কিন্তু বুঝতে অসুবিধা হওয়ায় এর নাম ‘ওমিক্রন’ দেয়া হয়েছে। আগের স্ট্রেনগুলোর চেয়ে এটি ‘ব্যাপক’ সংক্রামক বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। সেই সাথে ওমিক্রনকে করোনার ‘উদ্বেগজনক’ ধরন হিসেবে বর্ণনা করেছে সংস্থাটি।

করোনার নতুন এই ধরন শনাক্ত হওয়ার পর এর বিস্তার নিয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে গোটা বিশ্ব। ইতিমধ্যে বেশকিছু দেশে নতুন এই ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে বিশ্ববাসী বুঝে ওঠার আগেই হয়তো একাধিক দেশে ছড়িয়েছে ওমিক্রন।

আমেরিকার প্রেসিডেন্টের চিকিৎসা বিষয়ক মুখ্য উপদেষ্টা অ্যান্টনি ফাউচি জানিয়েছেন, সে দেশেও এক ব্যক্তির শরীরে ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছে। এই প্রথম আমেরিকায় করোনার এই নতুন ভেরিয়েন্টের খোঁজ মিলল। ক্যালিফর্নিয়ার ওই বাসিন্দা গত ২২ নভেম্বর দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে ফিরেছিলেন। ২৯ নভেম্বর তার কোভিড পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। ফাউচি আরো জানিয়েছেন, ওই ব্যক্তির কোভিডের টিকা নেয়া ছিল, তার শরীরে মৃদু উপসর্গ রয়েছে।

নেদারল্যান্ডসের ‘ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর পাবলিক হেলথ’ (আরআইভিএম)-এর বক্তব্য, “১৯ নভেম্বর ও ২৩ নভেম্বর, এই দু’দিন সংগৃহীত দু’টি নমুনায় ওমিক্রনের সন্ধান পেয়েছি আমরা। তবে সংক্রমিতেরা দক্ষিণ আফ্রিকা গিয়েছিলেন কি না, তা এখনো স্পষ্ট নয়”।

আরআইভিএম এ-ও জানিয়েছে, পরের ঘটনাটির সঙ্গে দক্ষিণ আফ্রিকার যোগ স্পষ্ট। অর্থাৎ, ২৬ নভেম্বর আমস্টারডমের বিমানবন্দরে অন্তত ১৪ জন নতুন স্ট্রেনটি নিয়ে ঢুকেছিলেন। এদের মধ্যে কিছু লোক ফিরেছিলেন জোহানেসবার্গ থেকে। কিছু এসেছিলেন কেপ টাউন থেকে। তারা জানিয়েছে, প্রত্যেককে চিহ্নিত করা হয়েছে।

দক্ষিণ আফ্রিকা ওমিক্রন স্ট্রেনের বিষয়ে প্রথম বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু)-কে রিপোর্ট করেছিল ২৪ নভেম্বর। নেদারল্যান্ডস প্রশাসন এত দিন জানত, এর দু’দিন পরে ২৬ নভেম্বরই দক্ষিণ আফ্রিকা ফেরত ওই দু’টি বিমানে ওমিক্রনের প্রবেশ ঘটেছিল। কিন্তু এখন তারা জানতে পেরেছে, ১৯ নভেম্বরই স্ট্রেনটি ছিল দেশে। আরআইভিএম জানিয়েছে, খুব শীঘ্র এ সংক্রান্ত একাধিক গবেষণা শুরু হবে দেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে। সাম্প্রতিক কালে সংগৃহীত নমুনাগুলি নতুন করে পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে। দক্ষিণ আফ্রিকা ফেরত দু’টি বিমানে মোট ৬১টি জন ছিলেন। সকলকে কোয়রান্টিন করা হয়েছে। তারা কাদের সংস্পর্শে এসেছিলেন, সে বিষয়েও নজরদারি চলছে।

আরো পড়ুন: ওমিক্রন ডেল্টার চেয়ে ভয়ঙ্কর নয়: অ্যাঞ্জেলিক কোয়েৎজি

জার্মানি, বেলজিয়ামও জানিয়েছে, তাদের সন্দেহ ২৪ নভেম্বরের আগেই এই দুই দেশে ওমিক্রন মিলেছিল। জার্মানি জানিয়েছে, ২১ নভেম্বর ফ্রাঙ্কফুর্ট বিমানবন্দরে পৌঁছনো এক যাত্রীর দেহে স্ট্রেনটি মিলেছে। বেলজিয়ামে ২২ নভেম্বর সংগ্রহ করা নমুনায় ওমিক্রন পাওয়া গিয়েছে। তবে এ পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি ওমিক্রন স্ট্রেন ধরা পড়েছে নেদারল্যান্ডসে- মোট ১৬টি।

ডাচ প্রশাসন অবশ্য দাবি করেছে, তাদের মতো সব দেশই যদি পুরনো নমুনা পুনরায় পরীক্ষা করে দেখে, ঠিকই দেখা যাবে আরও অনেক ওমিক্রন ছড়িয়ে পড়েছে। বেলজিয়ামে যেমন, ওমিক্রন ধরা পড়েছে ২২ নভেম্বর সংগ্রহ করা একটি নমুনায়। যিনি সংক্রমিত, তাঁর অনেক দেরিতে উপসর্গ দেখা দেয়। অন্তত ১১ দিন আগে তিনি মিশর থেকে তুরস্ক হয়ে দেশে ফিরেছিলেন।

আফ্রিকারই আর এক দেশ নাইজেরিয়া আজ জানিয়েছে, অক্টোবর মাসেই এক পর্যটকের নমুনায় ওমিক্রন মেলে। অর্থাৎ তারাও জানিয়েছে, দক্ষিণ আফ্রিকা ঘোষণা করার আগেই সে দেশে ভেরিয়েন্টটি ছড়িয়েছে। দেশের ‘সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল’ জানিয়েছে, নাইজিরিয়ায় বেড়াতে এসে কোভিড পজিটিভ ধরা পড়া পর্যটকদের থেকে সংগ্রহ করা নমুনা পুনরায় সিকোয়েন্সিং করা হচ্ছে। তাতেই বিষয়টি ধরা পড়ে। ওই পর্যটকেরা কোন দেশের, তা অবশ্য প্রকাশ করেনি নাইজিরিয়া। সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা

Comments
Loading...